সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে আ’লীগ নেতার এজাহার - Newsbangla360.online is the Most Popular Bangla Newspaper in Bangladesh

Breaking

Post Top Ad

Wednesday, 20 March 2019

সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে আ’লীগ নেতার এজাহার


সৈয়দ সাদিকুর রহমান - ছবি 

সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমানসহ দুইজনের নামে সদর থানায় চাঁদাবাজির অভিযোগে এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এজাহারকারী সাতক্ষীরা পৌর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও সুলতানপুর বড় বাজার মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি মো: আমিনুর রহমান।

এ ঘটনায় ব্যবসায়ীরা মঙ্গলবার রাতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমানের সাথে সাক্ষাত করেন এবং ঘটনার মামলা গ্রহণপূর্বক সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের গ্রেফতার দাবি করেন।


আমিনুর রহমান তার এজাহারে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে উল্লেখ করেছেন, ‘ছাত্রলীগ নামধারী ও পদ পদবি ব্যবহারের মাধ্যমে চাঁদাবাজি মাস্তানি, জমিজমা জবরদখল ও লুটতরাজসহ নতুন নতুন কমিটির গঠনের বিনিময়ে অবৈধ পন্থায় অর্থ উপাজনকারী সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের কলঙ্ক হিসেবে স্বল্প সময়ে জেলা শহরে ঘৃণার পাত্রসহ ব্যাপক কুখ্যাতি অর্জনকারী।’

এজাহারে বলা হয়েছে, ‘মঙ্গলবার দুপুরে যমুনা ব্যাংক থেকে টাকা তুলে বড় বাজার যাওয়ার সময় জেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি সাদিক তার মোবাইল থেকে জরুরী কথা বলার নাম করে তাকে পশু হাসপাতালে ডেকে নিয়ে আসে। এসময় সাদিক তাকে বলে আপনি বড় বাজারে ভালো ব্যবসা করেন। অথচ আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখেন না। কোনো টাকা-পয়সা দেন না। তাই সবাই মিলে আপনার কাছে ৫ লাখ টাকা ধার্য করেছি। আজকে যা পারেন দেন। বাকিটা কাল সাইফুলের (২নং আসামির) কাছে দেবেন।’

এ সময় আমিনুর রহমান বলেন, ‘আমি বৈধ ভাবে ব্যবসা করি এবং নিজেও আওয়ামী লীগের একজন পদধারী ব্যক্তি। সুতারাং কোনো চাঁদা দিতে পারবো না। আর এভাবে চাঁদাবাজি করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষতি করবে না।’


একথা বলার সাথে সাথে আসামিদ্বয় বাদির সাথে তুইতামারি করা শুরু করে এবং কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাকে মারপিট করে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। আসামিরা আমিনুর রহমানের ব্যাংক থেকে উঠানো দুই লাখ টাকা কেড়ে নেয় এবং আরো তিন লাখ টাকা কালকের মধ্যে দিতে বলে।

আসামিরা আরো বলে, ‘এ নিয়ে থানা কোট কাছারি করলে তোর গোষ্ঠীশুদ্ধ শেষ করে দেব। তাছাড়া এসপি ওসির কাছে মামলা করে লাভ হবে না। কারণ আমার চাচা এমপি আর আমিও বড় নেতা।’

এক পর্যায়ে বাদির ডাক চিৎকারে পথচারী লোকজন, সাক্ষী এবং পুলিশ বাদিকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠায়।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এজহার পেয়েছি, তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান সাদিক জানান, ‘আমি কারোর কাছ থেকে চাঁদ নেইনি। আমিনুর যে অভিযোগ দিয়েছে সেটি মিথ্য। সে একজন মাদক ব্যাবসায়ী।’

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad